English

অনলাইন

আজকের পত্রিকা

ফিচার

সম্পাদকীয়

মোংলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স

২০ বছর ধরে বিকল একমাত্র ডিজিটাল এক্স-রে মেশিন

  • এম এ মোতালেব, মোংলা   
  • ৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০

নানা সমস্যার আবর্তে ঘুরপাক খাচ্ছে মোংলা উপজেলা সরকারি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসাসেবা। এ হাসপাতালে সরকারিভাবে ২৭ জন চিকিৎসক থাকার কথা থাকলেও আছে মাত্র পাঁচজন।

তাঁদের মধ্যে থানা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তাসহ (টিএইচএফপিও) দুজন প্রশাসনিক কাজে হাসপাতালের বাইরে থাকেন। মূলত সর্বদা চিকিৎসক থাকেন তিনজন।

দুই লক্ষাধিক লোকের চিকিৎসাসেবা দিতে গিয়ে এ তিন চিকিৎসককে হিমশিম খেতে হয়। এক্স-রে টেকনিশিয়ান থাকলেও একমাত্র ডিজিটাল এক্স-রে মেশিনটি ২০ বছর ধরে রয়েছে অচল। এক্স-রে রুমে নেই এয়ারকন্ডিশনও।

বিদ্যুতের বিকল্প ব্যবস্থা না থাকায় জরুরি অপারেশনসহ রোগীদের অন্যান্য সেবা দেওয়া যাচ্ছে না। পৌরসভার সরবরাহ করা পানির অপ্রতুলতার কারণে শুকনো মৌসুমে হাসপাতালে রোগীদের জন্য পানির ব্যবস্থাও নেই।

১৯৯৮ সালের ২৩ এপ্রিল তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মোংলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের উদ্বোধন করেন। ওই সময় প্রায় ১০ লাখ টাকা মূল্যে কেনা ডিজিটাল এক্স-রে মেশিনটি আজও চালু হয়নি। এক্স-রে মেশিনটি মেরামত করতে গিয়ে আরো অনেক অর্থ ব্যয় হয়েছে। তবুও গত ২০ বছর ধরে সেটি অকেজোই পড়ে আছে। তা ছাড়া নারী রোগীদের দীর্ঘদিনের দাবি একজন নারী গাইনি চিকিৎসকের। কিন্তু তাও নেই হাসপাতালটিতে। বিকল্প বিদ্যুৎ ব্যবস্থা (জেনারেটর) না থাকায় জরুরি আপারেশনযোগ্য রোগী নিয়ে বেকায়দায় পড়তে হচ্ছে বলে জানান আবাসিক চিকিৎসক (আর এম ও) এম আজম।

হাসপাতালে ভর্তি ফণীভূষণ, সিতাংশু বিশ্বাস ও সুফিয়া বেগম জানান, হাসপাতাল থেকে ওষুধ সরবরাহ করা হয় না বললেই চলে। অধিকাংশ ওষুধ বাইরে থেকে কিনতে হয়।

প্রথম শ্রেণির চিকিৎসক থেকে শুরু করে চতুর্থ শ্রেণি পর্যন্ত মোট ১৬০ জন কর্মকর্তা-কর্মচারীর সরকারি মঞ্জুরিকৃত পদ থাকলেও আছে মাত্র ১০০ জন। বাদবাকি ৬০টি পদ শূন্য।

এ ব্যাপারে হাসপাতালের ইনচার্জ টিএইচএফপিও ডা. জীবিতেষ কুমার বলেন, প্রয়োজনের তুলনায় কমসংখ্যক ডাক্তার দিয়ে এ হাসপাতালের চিকিৎসাসেবা চালিয়ে নেওয়া হচ্ছে।

হাসপাতালে ডাক্তার স্বল্পতাসহ অন্যান্য সমস্যা সম্পর্কে বাহেরহাটের সিভিল সার্জন ডা. অরুণ চন্দ্র মণ্ডল বলেন, সারা দেশেই ডাক্তার স্বল্পতা আছে। নতুন ডাক্তার নিয়োগ দিলে সমস্যা অনেকটা দূর হবে। এ ছাড়া হাসপাতালের অন্যান্য সমস্যা সমাধানে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে।

প্রিয় দেশ- এর আরো খবর