English

অনলাইন

আজকের পত্রিকা

ফিচার

সম্পাদকীয়

সাংবাদিককে মারধর

নড়িয়ায় আওয়ামী লীগ নেতা আটক

  • শরীয়তপুর প্রতিনিধি   
  • ১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০

শরীয়তপুরের নড়িয়ায় ছবি তোলার অপরাধে সাংবাদিক আলমগীর হোসেন আলমকে মারধরের অভিযোগ পাওয়া গেছে। আলমগীর মানবজমিন পত্রিকার উপজেলা প্রতিনিধি। গত বৃহস্পতিবার রাতে নিজ কার্যালয়ে মারধরের শিকার হন তিনি।

ঘটনার পরপরই তাঁকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। পরদিন শুক্রবার তাঁকে সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। অন্যদিকে ঘটনায় জড়িত সন্দেহে পুলিশ নড়িয়া পৌর আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক মোকলেছ ব্যাপারীকে আটক করেছে। এ ব্যাপারে ১০ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন সাংবাদিক আলমগীর। তাঁর অভিযোগ, আধিপত্য বিস্তারের জেরে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা থেকে উপজেলা সদরে আওয়ামী লীগের দুই পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছিল। রাত ৯টার দিকে পৌর আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক মোকলেছ ব্যাপারীর নেতৃত্বে তাঁর সমর্থকরা দেশি অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে নড়িয়া পূর্ব বাজারে মহড়া দিচ্ছিল। তখন দূর থেকে আমি ছবি তুলছিলাম। ছবি তোলা শেষ করে কার্যালয়ে ঢোকার সঙ্গে সঙ্গে মোকলেছ ব্যাপারীর নেতৃত্বে ১০-১২ জন সন্ত্রাসী আমাকে মারধর

করে। সন্ত্রাসীরা তাঁর মোবাইল ফোনসেট ও ২৪ হাজার ৫০০ টাকা ছিনিয়ে নিয়েছে বলেও অভিযোগ করেন তিনি।

এ ব্যাপারে নড়িয়া পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি দুলাল ব্যাপারীর বক্তব্য, বাদশা শেখ (উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি) ও মোকলেছ ব্যাপারীর সমর্থকদের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছিল। আমরা দুই পক্ষকেই শান্ত থাকতে বলছিলাম। বৃহস্পতিবার রাতে কিছু লোকজন সাংবাদিক আলমগীর হোসেনের ওপর হামলা চালায়এটা অত্যন্ত দুঃখজনক। কিন্তু হামলায় মোকলেছ ব্যাপারী জড়িত নন বলে দাবি করেন তিনি।

আটক ও মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করে নড়িয়া থানার ওসি মো. আসলাম উদ্দিন বলেন, অন্য আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

প্রিয় দেশ- এর আরো খবর