English

অনলাইন

আজকের পত্রিকা

ফিচার

সম্পাদকীয়

সৈয়দপুর রেলস্টেশন

ফের ঝুলল ১০ ফ্যান

  • সৈয়দপুর (নীলফামারী) প্রতিনিধি   
  • ১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের পথসভা উপলক্ষে কয়েক দিন আগে নীলফামারীর সৈয়দপুর রেলস্টেশনে ফ্যান লাগানো হলেও পরে তা খুলে ফেলা হয়। এ নিয়ে সমালোচনার মুখে গতকাল সেখানে আবার ফ্যান লাগায় কর্তৃপক্ষ। ছবি : কালের কণ্ঠ

দুই দিনও পেরোয়নি। গণমাধ্যমের খবরের চাপে পড়ে নীলফামারীর সৈয়দপুর রেলস্টেশনের প্ল্যাটফর্মে ১০টি বৈদ্যুতিক পাখাই (ফ্যান) ফেরত এলো। গতকাল মঙ্গলবার সকালে সৈয়দপুরে রেলওয়ে বিদ্যুৎ বিভাগের পাওয়ার হাউস শাখা থেকে ওই ফ্যানগুলো এনে নতুন করে লাগানো হয়। অন্যান্য গণমাধ্যমের পাশাপাশি গতকাল মঙ্গলবার এ নিয়ে কালের কণ্ঠেও সচিত্র সংবাদ প্রকাশিত হয়।

গত শনিবার আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের কেন্দ্রীয় দলীয় নেতাদের নিয়ে উত্তরবঙ্গ সফরে আসেন। তাঁদের আগমনকে সামনে রেখে সৈয়দপুর স্টেশনের প্ল্যাটফর্মে ১০টি সিলিং ফ্যান লাগানো হয়। গত ৫ সেপ্টেম্বর সৈয়দপুর রেলওয়ে বিভাগীয় বিদ্যুৎ বিভাগের পক্ষ থেকে ওই ফ্যানগুলো লাগানো হয়েছিল। মন্ত্রীর সফরের পরদিনই অর্থাৎ গত রবিবার প্ল্যাটফর্মে লাগানো ফ্যানগুলো খুলে ফেলা হয়। এ নিয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে খবর প্রকাশিত হলে সংশ্লিষ্ট বিভাগে তোলপাড় শুরু হয়।

গতকাল স্টেশনে গিয়ে দেখা যায়, সৈয়দপুর রেলওয়ে বিভাগীয় বৈদ্যুতিক বিভাগের আওতাধীন পাওয়ার শাখার লোকজন খুলে নিয়ে যাওয়া ফ্যানগুলো প্ল্যাটফর্মে লাগাচ্ছে। এ সময় ফ্যান লাগাতে আসা বিদ্যুৎ বিভাগের এক কর্মচারী নাম না প্রকাশ করার শর্তে জানান, ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে ফ্যানগুলো লাগানো হচ্ছে।

এদিকে ফ্যানগুলো লাগানো ও খুলে নেওয়ার বিষয়ে রেলওয়ে বিদ্যুৎ বিভাগের পাওয়ার হাউস শাখা এবং রেলওয়ে স্টেশন কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে পরস্পরবিরোধী বক্তব্য মিলেছে।

রেলওয়ের বিভাগীয় বৈদ্যুতিক বিভাগের পাওয়ার হাউস শাখার ঊর্ধ্বতন উপসহকারী প্রকৌশলী মো. গোলাম মোস্তফা বলেন, স্টেশনে প্ল্যাটফর্মে লাগানো ফ্যানগুলোর বিষয়ে স্টেশনমাস্টার লিখিত না দেওয়ায় তা খুলে রাখা হয়েছিল। কারণ এসব সরকারি সম্পদ চুরি হয়ে গেলে এর দায়দায়িত্ব কে নেবে?

তবে সৈয়দপুর স্টেশনমাস্টার মো. শওকত আলী বলেন, ওই দিন রেলওয়ে বৈদ্যুতিক বিভাগ প্ল্যাটফর্মে ১০টি ফ্যান লাগানো হয়। অথচ তাঁরা সৈয়দপুর রেলওয়ে স্টেশনের ৪৩টি ফ্যানের বিষয়ে আমার কাছে লিখিত দাবি করেন।

খবর- এর আরো খবর