English

অনলাইন

আজকের পত্রিকা

ফিচার

সম্পাদকীয়

‘চারদলীয় জোট সরকারের শাসন দীর্ঘায়িত করতেই ওই হামলা হয়’

  • নিজস্ব প্রতিবেদক   
  • ১১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০

বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনাকে নিশ্চিহ্ন করে বিএনপি নেতৃত্বাধীন তৎকালীন চারদলীয় জোটের শাসন ক্ষমতা দীর্ঘায়িত করতেই রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট ভয়াবহ, বর্বরোচিত ও নৃশংস গ্রেনেড হামলা চালানো হয়েছিল। গতকাল সোমবার ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা থেকে উদ্ভূত হত্যা ও বিস্ফোরক দ্রব্য আইনের দুটি মামলায় আইনি বিষয়ে যুক্তিতর্ক উপস্থাপনের সময় রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী মোশাররফ হোসেন কাজল এ কথা বলেন।

রাজধানীর নাজিমুদ্দীন রোডে পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগারের পাশে স্থাপিত ঢাকার ১ নম্বর দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে মামলার শুনানি চলছে। বিচারক শাহেদ নূর উদ্দিন দুটি মামলার বিচারকাজ একসঙ্গে চালাচ্ছেন।

মোশাররফ হোসেন কাজল তাঁর যুক্তিতর্কে বলেন, যারা দেশ আবার পাকিস্তান তথা ১৯৪৭-এ ফিরিয়ে নিতে চেয়েছিল তারাই বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা করে। হত্যাকারীরা ৭৫-এর ১৫ আগস্ট শিশু শেখ রাসেলকেও হত্যা থেকে বাদ দেয়নি। একইভাবে ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট বঙ্গবন্ধুর রক্ত শেখ হাসিনাকে হত্যার লক্ষ্য করা হয়। তৎকালীন সরকারের ক্ষমতাধর ব্যক্তিরা হাওয়া ভবনে বসে এ মামলার চক্রান্ত, ষড়যন্ত্র ও পরিকল্পনা করেন। হাওয়া ভবন কার্যালয়ের কর্ণধার তারেক রহমান এতে সরাসরি সম্পৃক্ত। তাঁর আশ্বাসে ও সহযোগিতায় ভয়াবহ ওই হামলা ঘটানো হয়।

কাজল বলেন, হাওয়া ভবনসহ ১০টি স্থানে ২১ আগস্ট হামলার ষড়যন্ত্রমূলক সভা ও পরিকল্পনা করা হয়। যাতে সরকারের মন্ত্রীসহ তাঁদের অনুগত প্রশাসনের কর্মকর্তারা জড়িত ছিলেন। ষড়যন্ত্র ও পরিকল্পনা অনুযায়ী হামলাকারীরা হামলা ঘটিয়ে নির্বিঘ্নে পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়। কারা কারা ষড়যন্ত্র করেছে, অর্থ ও গ্রেনেড দিয়েছে, ঘটনা ঘটিয়েছে সেসব বিষয়ে আমরা সাক্ষ্যপ্রমাণ দিয়েছি। বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে ঘটনাটি যারা ঘটিয়েছে তাদের অনেকেই আফগানিস্তান ফেরত জঙ্গি। ২১ আগস্ট হামলা কোনো সাধারণ ঘটনা নয়। সুদূরপ্রসারী লক্ষ্য ও পরিকল্পনা নিয়েই এ ঘটনার ছক করা হয়।

কাজল তাঁর যুক্তির পক্ষে বিভিন্ন মামলার নজির তুলে ধরে বলেন, প্রকৃত ঘটনা ও অপরাধীদের আড়াল করতে ঘটনাকে ভিন্ন খাতে প্রবাহের চেষ্টা করা হয়েছে। নিরীহ জজ মিয়াকে সম্পৃক্ত করে নাটক তৈরি করে মামলাকে ভিন্ন খাতে নেওয়ার অপচেষ্টা করা হয়েছে।

আজ মঙ্গলবারও যুক্তিতর্ক উপস্থাপনের তারিখ ধার্য রয়েছে। কাজল আজ তাঁর অসমাপ্ত বক্তব্য প্রদান করবেন। গত বছরের ২৩ অক্টোবর এই মামলার যুক্তিতর্ক শুনানি শুরু হয়। আসামিপক্ষের যুক্তিতর্ক শুনানি আগেই শেষ হয়েছে।

খবর- এর আরো খবর