English

অনলাইন

আজকের পত্রিকা

ফিচার

সম্পাদকীয়

অতিরিক্ত বিলের ভয়

খোঁজ মিলেছে সন্তান হাসপাতালে রেখে যাওয়া দম্পতির

  • চাঁদপুর প্রতিনিধি   
  • ৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০

কুমিল্লায় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন নবজাতককে ফেলে চলে যাওয়া মা-বাবার সন্ধান মিলেছে। তাঁদের বাড়ি চাঁদপুরের হাজীগঞ্জ উপজেলার বাকিলা ইউনিয়নের ফুলছোঁয়া গ্রামে। এর মধ্যে বাবা শাহ আলম দিনমজুর; আর মা রোকেয়া বেগম গৃহিণী। দরিদ্র এই দম্পতি জানান, হাসপাতালের অতিরিক্ত বিলের কথা শোনার পর তাঁরা সন্তানকে রেখে গ্রামে চলে যান।

কুমিল্লার মা ও শিশু স্পেশালাইড হাসপাতাল নামের এ চিকিৎসাকেন্দ্রের অবস্থান শহরের ঝাউতলা এলাকায়। অপরিণত ও অপেক্ষাকৃত কম ওজন হওয়ায় গত ২৮ আগস্ট সন্তানকে হাসপাতালটিতে ভর্তি করান শাহ আলম ও রোকেয়া বেগম দম্পতি।

গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে মোবাইল ফোনে শাহ আলম বলেন, হাসপাতালের লোকজন বলেছিল যে মাত্র পাঁচ-সাত হাজার টাকার মধ্যে তাঁর সন্তানের চিকিৎসা সম্ভব। তাই সেখানে ভর্তি করেছি। কিন্তু দুই দিন থাকার পর তারা আমার কাছে ৭০ হাজার টাকা দাবি করে। তাই বাচ্চাকে রেখে বাধ্য হয়ে স্ত্রীকে নিয়ে গ্রামে চলে আসি।

বাকিলা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মাহফুজুর রহমান ইউসুফ বলেন, খেটে খাওয়া শাহ আলম হাসপাতালের খরচের কথা শুনে কাউকে না জানিয়ে বাড়ি চলে আসেন। আমরা ইউনিয়ন পরিষদ ও বিভিন্নজনের কাছ থেকে ৩০ হাজার টাকা সংগ্রহ করেছি। এ টাকা নিয়ে আগামীকাল (বুধবার) ওই দম্পতি কুমিল্লা যাবে।

শাহ আলমের স্ত্রী রোকেয়া বেগম জানান, এর আগেও তিনি অপরিণত সন্তান প্রসব করেন। কিন্তু চিকিৎসার অভাবে বাঁচানো যায়নি। তিনি বলেন, অপরিণত বয়সের বাচ্চাদের অল্প খরচে চিকিৎসা হয়এমন কথায় প্রলুব্ধ হয়ে স্থানীয় এক দালালের মাধ্যমে আমরা কুমিল্লার ওই হাসপাতালে যাই।

হাসপাতালের চিকিৎসক ডা. বদিউল আলম জানান, আমরা তো জোর করে তাঁদের কাছে বাড়তি কিছু দাবি করিনি। শুধু খরচের টাকা চেয়েছিলাম। কিন্তু নবজাতকটিকে রেখে না বলেই তাঁরা চলে গেছেন। তাই বলে তো ওকে চিকিৎসা ছাড়া ফেলে রাখতে পারি না।

কুমিল্লা জেলা সিভিল সার্জন ডা. মজিবুল হক জানান, এই নবজাতককে বাঁচিয়ে রাখার জন্য সব ধরনের ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

খবর- এর আরো খবর