English

অনলাইন

আজকের পত্রিকা

ফিচার

সম্পাদকীয়

গণপরিবহনে নৈরাজ্য

  • ৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০

সড়কে মৃত্যুর মিছিল দিন দিন দীর্ঘায়িত হচ্ছে। সেই সঙ্গে বাড়ছে প্রিয়জন হারানোর দীর্ঘশ্বাস। যুক্ত হয়েছে নতুন আতঙ্ক। ভাড়া কিংবা অন্য কিছু নিয়ে বনিবনা না হলে চলন্ত গাড়ি থেকে জোর করে নামিয়ে দেওয়া হচ্ছে যাত্রীদের। ফলে ঘটছে মৃত্যুসহ আরো নানা দুর্ঘটনা। আমাদের দেশের পরিবহন ব্যবস্থাপনা ত্রুটিযুক্ত। এখানে যাত্রীদের নিরাপত্তার কথা ভাবার ন্যূনতম চেষ্টাও লক্ষ করা যায় না। রাজধানীসহ সারা দেশে বাস পরিচালনাকারী ব্যক্তিরা যাত্রীদের নিছক পণ্য মনে করে। সরকারের নির্ধারিত ভাড়ায় কেউই বাস চালায় না। বিষয়টি কর্তৃপক্ষের গোচরে থাকা সত্ত্বেও ব্যবস্থা নেওয়া হয় না। বেশির ভাগ ক্ষেত্রে চালকের অবহেলা, অদক্ষতা ও দায়িত্বহীনতায় সড়কে মানুষের প্রাণ যাচ্ছে। কিছু ক্ষেত্রে যাত্রী ও পথচারীদের কারণেও দুর্ঘটনা ঘটছে। এর জন্য দায়ী কর্তৃপক্ষের দুর্বল ব্যবস্থাপনা। চালকের প্রশিক্ষণ ও সনদ প্রদান সংক্রান্ত বিষয়ে কড়াকড়ি আরোপ করা যায়নি। এসব ক্ষেত্রে কর্তৃপক্ষ বাস্তবে মালিক-শ্রমিকের পক্ষে অবস্থান নেয়। ফলে তাদের অপরাধ সুস্পষ্ট হলেও উপযুক্ত বিচার করা যায় না। বেশির ভাগ চালক উপযুক্ত দক্ষতা ও প্রশিক্ষণ ছাড়াই সনদ পেয়ে যায়। অনেক ক্ষেত্রে সড়কে যানবাহন চালাতে সনদেরও প্রয়োজন পড়ে না। কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগসাজশ করলেই চলে। এই অব্যবস্থাপনা সড়কে নিরাপদ যান চলাচলের নিশ্চয়তা দেয় না। প্রয়োজন মোটরযান আইনের সংস্কার। সার্বিক উন্নয়ন চাইলে অবশ্যই পরিবহন খাতে সুশাসন আনতে হবে। দায়ী চালক ও বাস মালিকদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির আওতায় আনতে হবে।

ফয়সাল হাসান

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়, কুমিল্লা।

চিঠিপত্র- এর আরো খবর