English

অনলাইন

আজকের পত্রিকা

ফিচার

সম্পাদকীয়

মানিকগঞ্জ-ঢাকা

প্রতিদিন ওঠে লাখ টাকা

  • সাব্বিরুল ইসলাম সাবু, মানিকগঞ্জ   
  • ১০ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০

মানিকগঞ্জ থেকে ঢাকাগামী যাত্রীবাহী বাস ও মিনিবাসে প্রতিদিন লাখ টাকারও বেশি চাঁদাবাজি হচ্ছে। অথচ গত দেড় মাস ধরে জেলা প্রশাসন পরিবহন খাতের দেখভাল করলেও চাঁদাবাজদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছে না।

সাধারণ পরিবহন মালিকরা এ ব্যাপারে জেলা প্রশাসকের কাছে অভিযোগ করেছে। তাদের অভিযোগ, পরিবহন মালিক সমিতির নেতা ও মানিকগঞ্জ পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জাহিদুল ইসলামের নামে এই চাঁদাবাজি হচ্ছে।

পরিবহন মালিক ও শ্রমিকদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, মানিকগঞ্জ থেকে শুভযাত্রা পরিবহনের ৬০টি, ভিলেজ লাইনের ১০০টি, নবীনবরণের ৭০টি, স্বপ্ন পরিবহনের ৭০টি, যাত্রীসেবা পরিবহনের ৯০টি, নীলাচলের ৪০টি ও বিআরটিসির ২০টি বাস ও মিনিবাস ঢাকায় আসা-যাওয়া করে।

শুভযাত্রা পরিবহনের মালিক ও শ্রমিকরা জানায়, মানিকগঞ্জ বাসস্ট্যান্ডে এ পরিবহনের প্রতিটি গাড়ি থেকে ৪৮০ টাকা চাঁদা আদায় করা হচ্ছে। এ ছাড়া পাটুরিয়া ফেরিঘাট, আরিচাঘাট ও অন্যান্য উপজেলা থেকে ঢাকাগামী অন্যসব পরিবহনের বাস থেকে ২১০ টাকা হারে চাঁদা আদায় চলছে।

শুভযাত্রা পরিবহনের কয়েকজন চালক বলে, চাঁদা না দিলে তাদের মারধর করা হয়। গাড়ির ট্রিপ দেওয়া হয় না। বাধ্য হয়ে তাদের চাঁদা দিতে হচ্ছে।

যাত্রীসেবা পরিবহনের দুটি বাসের মালিক আব্দুস সালাম বলেন, মালিক সমিতি, শ্রমিক সমিতিসহ বিভিন্ন খাতে মানিকগঞ্জ ও ঢাকায় প্রতিদিন তাঁকে দুই হাজার ৬০০ টাকা চাঁদা দিতে হচ্ছে। এভাবে চলতে থাকলে ব্যবসা টিকিয়ে রাখা সম্ভব হবে না।

এ বিষয়ে মানিকগঞ্জ বাস, মিনিবাস, মাইক্রোবাস, অটোটেম্পো ওনার্স গ্রুপের সভাপতির দাবিদার জাহিদুর ইসলাম বলেন, সুপারভাইজার, লাইনম্যানদের বেতন ও টার্মিনালে পার্কিং ট্যাক্স বাবদ নির্ধারিত হারে চাঁদা নেওয়া হয়। কোনো অবৈধ প্রক্রিয়ায় চাঁদা আদায় করা হচ্ছে না। প্রতিহিংসাবশত তাঁদের বিরুদ্ধে একটি কুচক্রিমহল মিথ্যা অভিযোগ করেছে।

প্রশাসন দায়িত্ব নেওয়ার আগে মানিকগঞ্জের পরিবহন খাত নিয়ন্ত্রণ করত মানিকগঞ্জ বাস, মিনিবাস, মাইক্রোবাস, অটোটেম্পো ওনার্স গ্রুপ নামের সংগঠনটি। গত বছরের ১৩ অক্টোবর পর্যন্ত ওনার্স গ্রুপের সভাপতির দায়িত্বে ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক কাজী এনায়েত হোসেন টিপু। কিন্তু একপর্যায়ে পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জাহিদুল ইসলাম নিজেকে ওনার্স গ্রুপের বৈধ সভাপতি হিসেবে দাবি করেন। গত বছরের ১৩ অক্টোবর জাহিদুল ইসলামের লোকজন টিপুর লোকজনকে হটিয়ে টার্মিনাল দখল করে পরিবহন খাত নিয়ন্ত্রণে নেয়।

পরিবহনে চাঁদাবাজি- এর আরো খবর