English

অনলাইন

আজকের পত্রিকা

ফিচার

সম্পাদকীয়

যুদ্ধাপরাধ তদন্ত

‘যুক্তরাষ্ট্রের হুমকিতে ভীত নন আন্তর্জাতিক আদালত’

  • কালের কণ্ঠ ডেস্ক   
  • ১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০

হেগের আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালত বলেছেন, তাঁরা যুক্তরাষ্ট্রের হুমকিতে ভীত নন। আফগানিস্তানে মার্কিন সেনাদের যুদ্ধাপরাধের বিচারের অভিযোগ তদন্ত করলে আইসিসি ও এর বিচারকদের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান নেওয়া হবে বলে যে হুমকি যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা জন বোল্টন দিয়েছেন, এর জবাবে আদালত এ কথা বলেছেন। তাঁরা গতকাল এক বিবৃতিতে বলেছেন, তাঁরা তাঁদের কাজে অনড় থাকবেন। আইনের শাসনে পরিচালিত আদালত হিসেবে আইসিসি অবিচলভাবে কাজ করে যাবেন। আইনের শাসনের ধারণা ও নীতিমালার সঙ্গে সংগতি রেখে কাজ করা হবে।

যুক্তরাষ্ট্রে ২০০১ সালের ১১ সেপ্টেম্বরের সন্ত্রাসী হামলার পর দেশটি আফগানিস্তানে অভিযান শুরু করে। ২০১৪ সালে তালেবানের বিরুদ্ধে মার্কিন অভিযান শেষ হলেও এখনো আফগানিস্তানে দেশটির সেনাদের সহায়তা দেওয়ার জন্য মাকিন সেনা রয়ে গেছে। আইসিসির প্রসিকিউটর ফাতৌ বেনসুদা গত বছরে বলেছিলেন, আফগানিস্তানে যে যুদ্ধাপরাধ ও মানবতাবিরোধী অপরাধ সংঘটিত হয়েছে, তা বিশ্বাস করার মতো যৌক্তিক ভিত্তি রয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের সশস্ত্র বাহিনী ও মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএর সদস্যসহ আফগান যুদ্ধে লিপ্ত সব পক্ষের সংশ্লিষ্টতা খতিয়ে দেখা হবে বলে জানান তিনি।

সোমবার ওয়াশিংটনে যুক্তরাষ্ট্রের রক্ষণশীলদের প্রভাবশালী সংগঠন ফেডারেলিস্ট সোসাইটি আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে দেওয়া ভাষণে জন বোল্টন আইসিসিকে অবৈধ বলে অভিহিত করেন। এই আদালতে মার্কিন সেনাদের বিচারপ্রক্রিয়া শুরু করলে সেখানকার বিচারপতি ও প্রসিকিউটরদের ওপর মার্কিন নিষেধাজ্ঞা আরোপের হুমকি দিয়ে তিনি বলেন, এই অবৈধ আদালতের অন্যায্য বিচারপ্রক্রিয়া থেকে আমাদের নাগরিক ও মিত্রদের সুরক্ষায় যুক্তরাষ্ট্র প্রয়োজনীয় যেকোনো উপায় অবলম্বন করতে পারে।

তবে আইসিসি যুক্তরাষ্ট্রের এসব হুমকিতে টলছেন না বলে জানিয়ে দিয়েছেন। গতকাল এক বিবৃতিতে আদালতের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়, এটি স্বাধীন ও নিরপেক্ষ প্রতিষ্ঠান। ১২৩টি দেশের সমর্থন তাঁদের সঙ্গে রয়েছে। বিবৃতিতে বলা হয়, আইনের শাসনে পরিচালিত আদালত হিসেবে আইসিসি অবিচলভাবে কাজ করে যাবেন। আইনের শাসনের ধারণা ও নীতিমালার সঙ্গে সংগতি রেখে কাজ করা হবে। সূত্র : রয়টার্স।

দেশে দেশে- এর আরো খবর