English

অনলাইন

আজকের পত্রিকা

ফিচার

সম্পাদকীয়

সর্বকালের বড় সামরিক মহড়া করছে রাশিয়া

  • কালের কণ্ঠ ডেস্ক   
  • ১১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০

রাশিয়া তার ইতিহাসে সবচেয়ে বড় সামরিক মহড়া শুরু করছে। আজ থেকে সপ্তাহব্যাপী শুরু হওয়া এই মহড়ায় তিন লাখ সেনা অংশ নিচ্ছে। মহড়ায় রাশিয়ার সেনাদের সঙ্গে চীন ও মঙ্গোলিয়ার সেনারা অংশ নেবে। সাইবেরিয়ার পূর্বাঞ্চলে শুরু হওয়া এই মহড়াকে ভোস্টক-২০১৮ (পূর্ব-২০১৮) নাম দেওয়া হয়েছে। রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন এই মহড়ায় অংশ নিতে পারেন। রাশিয়ার পূর্বাঞ্চলের শহর ভ্লাদিভোস্তকে অর্থনৈতিক ফোরামের অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণের পর তিনি মহড়া অনুষ্ঠানে যোগ দিতে পারেন।

ইউক্রেন এবং সিরিয়ায় চলমান সংঘর্ষের পাশাপাশি রাশিয়ার বিরুদ্ধে যখন পশ্চিমের বিষয়ে হস্তক্ষেপের অভিযোগ উঠেছে তখনই রাশিয়া এই মহড়া শুরু করছে। রাশিয়া এর আগে সবচেয়ে বড় সামরিক মহড়া করেছে ১৯৮১ সালে। সে সময়ে সোভিয়েত ইউনিয়নের জাপাদ-৮১ (পশ্চিম-৮১) নামের মহড়া এক লাখ থেকে দেড় লাখ সেনা অংশ নিয়েছিল। সে সময়ের পরিস্থিতি তুলনা করে প্রতিরক্ষামন্ত্রী সের্গেই শোইগু বলেছেন, এবারের মহড়া আরো বড় হবে। তিন লাখ সেনার পাশাপাশি মহড়ায় ৩৬ হাজার সামরিক যান, এক হাজার বিমান এবং ৮০টি যুদ্ধজাহাজ অংশ নেবে। শোইগু আরো বলেন, একসঙ্গে ৩৬ হাজার সামরিক যান চলাচল করছে বিষয়টি মোটেও স্বাভাবিক নয়। ট্যাংকসহ যুদ্ধে ব্যবহৃত সব ধরনের যান থাকবে। এটা অনেকটা যুদ্ধাবস্থার মতোই হবে।

রাশিয়ার সেনাবাহিনী এই মহড়ায় সর্বাধুনিক অস্ত্রশস্ত্র প্রদর্শন করবে। মহড়ায় পারমাণবিক ওভারহেড বহনক্ষম ইস্কান্দার ক্ষেপণাস্ত্র, টি-৮০ ও টি-৯০ মডেলের ট্যাংক এবং সু-৩৪ ও সু-৩৫ মডেলের যুদ্ধ বিমানও থাকবে। সমুদ্রে কালিবার ক্ষেপণাস্ত্র বেশ কয়েকটি ফ্রিগেট মহড়ায় অংশ নেবে।

রাশিয়ার সামরিক বিশ্লেষক পাভেল ফেলগেনহাউর এ মহড়াকে ভবিষ্যতের বিশ্বযুদ্ধের প্রস্তুতি বলে বর্ণনা করেছেন। তিনি বলেন, সেনাবাহিনীর কর্মকর্তারা বিশ্বাস করেন এই যুদ্ধ ২০২০ সালের পর হতে পারে। এটা বিশ্বযুদ্ধের আকারে হতে পারে বা বিশাল খণ্ড আকারে হতে পারে। এ যুদ্ধের প্রতিপক্ষ হবে যুক্তরাষ্ট্র এবং তার মিত্ররা। ফেলগেনহাউ আরো বলেন, চীন মাত্র তিন হাজার ২০০ সেনা নিয়ে এই মহড়ায় অংশ নিচ্ছে। তবে এটা মহড়ার জন্য গুরুত্বপূর্ণ এক বিষয়।

সূত্র : টাইমস অব ইন্ডিয়া।

দেশে দেশে- এর আরো খবর