English

অনলাইন

আজকের পত্রিকা

ফিচার

সম্পাদকীয়

আফগানিস্তানে মার্কিন বাহিনীর যুদ্ধাপরাধ তদন্ত রুখতে হুমকি

  • কালের কণ্ঠ ডেস্ক   
  • ১১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০

আফগানিস্তানে মার্কিন সেনাদের যুদ্ধাপরাধের বিচারের অভিযোগ তদন্ত করতে গেলে হেগের আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালত (আইসিসি) ও এর বিচারকদের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান নেওয়ার হুমকি দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা জন বোল্টন এ হুমকি দিয়ে বলেছেন, আইসিসি এ বিচার নিয়ে অগ্রসর হলে এর বিচারক ও প্রতিষ্ঠানটির তহবিলের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হবে এবং সহায়তা বন্ধ করে দেওয়া হবে।

গতকাল সোমবার দুপুরে (বাংলাদেশ সময় রাতে) ওয়াশিংটনে আয়োজিত যুক্তরাষ্ট্রের রক্ষণশীলদের প্রভাবশালী সংগঠন ফেডারেলিস্ট সোসাইটিতে দেওয়া এক ভাষণে এই হুমকি দেন জন বোল্টন। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প হোয়াইট হাউসে আসার পর এই প্রথম ফেডারেলিস্ট সোসাইটি গুরুত্বপূর্ণ ভাষণের আয়োজন করে। তবে ভাষণের একটি খসড়া অনুষ্ঠান শুরুর আগেই পেয়ে যায় বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

জন বোল্টন তাঁর ভাষণে বলেন, এই অবৈধ আদালতের অন্যায্য বিচারপ্রক্রিয়া থেকে আমাদের নাগরিক ও মিত্রদের সুরক্ষায় যুক্তরাষ্ট্র প্রয়োজনীয় যেকোনো উপায় অবলম্বন করতে পারে।

যুক্তরাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ ও কৌশলগত মিত্র ইসরায়েলকে একই আদালতে বিচারের মুখোমুখি করার আশঙ্কায় ফিলিস্তিনের প্রতিও হুমকি দিয়ে রাখেন বোল্টন। তিনি বলেন, মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তর ওয়াশিংটনে প্যালেস্টাইন লিবারেশন অর্গানাইজেশনের (পিএলও) অফিসও বন্ধ ঘোষণা করতে যাচ্ছে। ইসরায়েলের বিরুদ্ধে ফিলিস্তিন আইসিসির তদন্তের চেষ্টা করতে পারে এই আশঙ্কায় এ পদক্ষেপ নেওয়া। তিনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্র সব সময় আমাদের বন্ধু, মিত্র ও ইসরায়েলের পাশে দাঁড়ায়।

বোল্টন বলেন, আফগানিস্তানে যুদ্ধকালে যুক্তরাষ্ট্রের সশস্ত্র বাহিনীর কোনো সদস্য কিংবা গোয়েন্দা কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধাপরাধের অভিযোগে যদি আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালত তদন্ত শুরু করতে আনুষ্ঠনিকভাবে অগ্রসর হন, তাহলে ট্রাম্প প্রশাসনও পাল্টা যুদ্ধ করবে। যদি এ ধরনের তদন্ত কার্যক্রম শুরু হয়, তাহলে ট্রাম্প প্রশাসন আইসিসির বিচারক ও প্রসিকিউটরদের যুক্তরাষ্ট্রের প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা এবং যুক্তরাষ্ট্রের আর্থিক ব্যবস্থাপনার (ফিন্যানশিয়াল সিস্টেম) মধ্যে আইসিসির কোনো তহবিল থাকলে তার ওপর অবরোধ আরো করা হবে। একই সঙ্গে আমেরিকার আদালতে তাদের বিচার করা হবে।

বোল্টন তাঁর ভাষণে বলেন, আমরা আইসিসিকে সহযোগিতা করব না। আমরা তাদের কোনো সহায়তার জোগান দেব না। আমরা আইসিসিতে যোগ দেব না। আমরা আইসিসিকে নিজে নিজে মরতে দেব। সর্বোপরি, তাদের সব অভিপ্রায় ও উদ্দেশ্যের জন্য আইসিসি এরই মধ্যে আমাদের কাছে মৃত। একই সঙ্গে তিনি জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে আইসিসির ক্ষমতা কমাতে যুক্তরাষ্ট্র উদ্যোগ নেবে বলেও ঘোষণা দেন।

প্রসঙ্গত, আইসিসি আফগানিস্তান যুদ্ধে জড়িত দুই পক্ষ তালেবান এবং যুক্তরাষ্ট্র ও আফগান বাহিনীর যুদ্ধাপরাধের অভিযোগ তদন্ত করতে চাচ্ছে। প্রতিষ্ঠানটির উদ্দেশ্য, আফগানিস্তানে যুদ্ধাপরাধ, মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধ ও গণহত্যার ঘটনাগুলোয় অভিযুক্তদের বিচারের আওতায় আনা। তবে যে চুক্তির অধীনে ২০০২ সালে আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালত গঠিত হয়েছে, সেই রোম ট্রিটিতে আজও স্বাক্ষর করেনি যুক্তরাষ্ট্র। সূত্র : টাইমস অব ইন্ডিয়া।

দেশে দেশে- এর আরো খবর