English

অনলাইন

আজকের পত্রিকা

ফিচার

সম্পাদকীয়

লেনিনের ভাস্কর্য মেরামত করে দিল তাজিক মসজিদ

  • কালের কণ্ঠ ডেস্ক   
  • ৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০

তাজিকিস্তানে সংস্কার করা লেনিনের ভাস্কর্য। ছবি : এএফপি

তাজিকিস্তানে রুশ বিপ্লবী ভ্লাদিমির লেনিনের ভাস্কর্য সংস্কার নিয়ে মধ্য এশিয়ার গণমাধ্যমে শোরগোল পড়েছে। দেশটির শাহরিতাস শহরের কেন্দ্রীয় মসজিদের উদ্যোগে ওই ভাস্কর্য মেরামত করা হয়। আর অর্থায়ন করা হয় মসজিদের সাপ্তাহিক আয় থেকে।

রেডিও ওজোদি জানিয়েছে, দুই বছর আগে লেনিনের ওই ভাস্কর্য অপসারণ করা হয়। এখন মসজিদের ইমাম-খতিবের সংগৃহীত অর্থ দিয়ে সেটিকে নতুন করে স্থাপন করা হলো। ভাস্কর্যটিকে সোনালি রং করা হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত হাতটিকে পুনঃস্থাপন করা হয়েছে।

শাহরিতাস ডিস্ট্রিক্টের ডেপুটি চেয়ারম্যান মেহরিনিসো রাজাবোভা বলেন, নিজ থেকেই ধর্মীয় নেতারা এগিয়ে এসেছেন। তাঁরা ভাস্কর্যটিকে মেরামত করে নতুন করে বসিয়েছেন। সংস্কার ব্যয়ের পরিমাণ জানতে চাইলে একজন ইমামকে লজ্জিত হতে দেখা যায়। তিনি জানান, সপ্তাহে প্রত্যেক মসজিদে গড়ে ১০০ ডলার দান পাওয়া যায়।

সোভিয়েত ইউনিয়নের শাসনামলে ১৯৮০ সালে শাহরিতাসে ওই ভাস্কর্যটি নির্মাণ করা হয়। এটি সমগ্র দক্ষিণ তাজিকিস্তানের মধ্যে সবচেয়ে উঁচু স্মৃতিস্তম্ভ। তাজিকিস্তান স্বাধীনতা লাভের ১১ বছর পর সোভিয়েত নেতাদের ভাস্কর্য অপসারণ করা হতে থাকে। তবে ঐতিহাসিক বিচার মূল্যে লেনিনের ভাস্কর্যটি বেঁচে যায়।

২০১৬ সালে স্থানীয় কর্তৃপক্ষ জাতীয়তাবাদে মেতে ওঠে। তাঁরা সোভিয়েত যুগের ভাস্কর্যগুলোকে সরিয়ে জাতীয় বীরদের ভাস্কর্য প্রতিস্থাপন শুরু করে। লেনিনের ওই ভাস্কর্যের ঠাঁই হয় অবশোরন নামের একটি গ্রামে। সেখানে অযত্ন-অবহেলায় সেটি পড়েছিল।

এদিকে লেনিনের ভাস্কর্য মেরামত করা নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা গেছে। একজন লিখেছেন, ওই অর্থ দিয়ে গরিবদের সহায়তা করা যেত।

অবশ্য অনেকে প্রশংসাও করেছেন। বলেছেন, তাঁরা (ধর্মীয় নেতারা) সঠিক কাজ করেছে। তাঁরা যদি লেনিনের পাশে না দাঁড়াতেন, তাহলে সব মধ্য এশিয়ান আর আফগানিস্তানের অশিক্ষিতদের মধ্যে কোনো পার্থক্য থাকত না। সূত্র : বিবিসি।

দেশে দেশে- এর আরো খবর