English

অনলাইন

আজকের পত্রিকা

ফিচার

সম্পাদকীয়

দুই কোরিয়ার তৃতীয় শীর্ষ বৈঠকেই চূড়ান্ত ফয়সালা!

♦ ১৮-২০ সেপ্টেম্বর হবে এই সম্মেলন
♦ পরমাণু নিরস্ত্রীকরণ নিয়ে সময়সীমা প্রকাশ করলেন কিম

  • কালের কণ্ঠ ডেস্ক   
  • ৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০

তৃতীয়বারের মতো শীর্ষ বৈঠক করতে সম্মত হয়েছেন উত্তর কোরিয়ার সর্বোচ্চ নেতা কিম জং উন ও দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট মুন জায়ে ইন। আগামী ১৮-২০ সেপ্টেম্বর তিন দিনব্যাপী এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে উত্তর কোরিয়ার রাজধানী পিয়ংইয়ংয়ে। পরমাণু নিরস্ত্রীকরণে কার্যকর পদক্ষেপ নিয়ে আলোচনা করতে এ বৈঠকে বসবেন দুই কোরিয়ার নেতারা। গতকাল বৃহস্পতিবার উত্তর কোরিয়ার রাষ্ট্রীয় সংবাদ সংস্থা কেসিএনএ এই তথ্য জানিয়েছে।

গত বুধবার পিয়ংইয়ংয়ে উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জংয়ের সঙ্গে দক্ষিণ কোরিয়ার জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা চুং ইয়ুই-ইয়োংয়ের এক সাক্ষাতে তৃতীয় শীর্ষ বৈঠকের তারিখ চূড়ান্ত হয়। এ সময় কোরীয় উপদ্বীপকে পরমাণু নিরস্ত্রীকরণে আবারও প্রতিশ্রুতি পুনর্ব্যক্ত করেন কিম। সাক্ষাৎকালে কিমের হাতে মুনের একটি ব্যক্তিগত চিঠি তুলে দেন চুং ইয়ুই। এই বৈঠকটি নিয়ে উচ্চাশা রয়েছে বলে আগেই জানিয়েছিলেন দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট মুন জায়ে ইন।

কেসিএনএ জানায়, দক্ষিণ কোরিয়ার জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টার সঙ্গে বৈঠককালে উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম তাঁর প্রতিশ্রুতি পুনর্ব্যক্ত করে বলেন, কোরীয় উপদ্বীপের পরমাণু নিরস্ত্রীকরণ নিয়ে দুই কোরিয়াকে তাদের প্রচেষ্টার বিষয়টি অনুধাবন করতে হবে। তিনি বলেন, আমরা কোরীয় উপদ্বীপ থেকে সশস্ত্র সংঘাতের বিপদ ও যুদ্ধ আতঙ্ক চিরতরে দূর করতে অটল অবস্থানে রয়েছি। আমরা কোরীয় উপদ্বীপকে পরমাণু অস্ত্র ব্যতীত একটি শান্তির দোলনায় পরিণত করতে চাই এবং পরমাণু হুমকি থেকে মুক্ত রাখতে চাই।

সাক্ষাৎকালে দক্ষিণ কোরিয়ার প্রতিনিধিদলটিকে কিম বলেন, তিনি যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রথম মেয়াদে ২০২১ সালের মধ্যেই কোরীয় উপদ্বীপের পরমাণু নিরস্ত্রীকরণ সম্পন্ন করতে চান। পরে প্রতিনিধিদলটি সাংবাদিকদের বলে, পরমাণু নিরস্ত্রীকরণ নিয়ে এই প্রথম কোনো সময়সীমার কথা জানালেন উত্তর কোরিয়ার নেতা।

সিউলে কর্মরত আলজাজিরার প্রতিনিধি রব ম্যাকব্রাইড বলেছেন, আগামী সপ্তাহে অনুষ্ঠেয় এই বৈঠক নিয়ে এখন দুই পক্ষ কাজ করছে। এ নিয়ে উত্তর ও দক্ষিণ কোরিয়ার মধ্যে একটি লিয়াজোঁ অফিসও স্থাপন করা হচ্ছে। গত আগস্টেই এটি হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু পিয়ংইয়ং ও ওয়াশিংটনের মধ্যে ভুল-বোঝাবুঝির কারণে এই বিলম্ব ঘটে।

পরমাণু নিরস্ত্রীকরণ নিয়ে কয়েক সপ্তাহের অচলাবস্থার মধ্যে গত বুধবার পিয়ংইয়ং সফরে যায় চুং ইয়ুইয়ের নেতৃত্বে দক্ষিণ কোরিয়ার প্রতিনিধিদল। সফরে দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট মুন জায়ে ইনের ব্যক্তিগত চিঠি কিম জং উনের কাছে হস্তান্তর করেন চুং ইয়ুই। চিঠিতে দুই দেশের কূটনৈতিক তৎপরতা শুরুর প্রত্যাশা ব্যক্ত করা হয়।

উত্তর কোরিয়ার পরমাণু নিরস্ত্রীকরণ নিয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের হতাশা প্রকাশের কয়েক দিনের মধ্যে দুই কোরিয়ার এই শীর্ষ বৈঠকে সম্মিতির খবরটি এলো। ট্রাম্প উত্তর কোরিয়ার পরমাণু নিরস্ত্রীকরণ নিয়ে চীনকে দোষারোপ করেছিলেন। গত মাসে তিনি তাঁর পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেওয়ের পিয়ংইয়ং সফরও বাতিল করেছিলেন।

এর আগে গত জুনে সিঙ্গাপুরে উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উন ও যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এক ঐতিহাসিক বৈঠকে বসেছিলেন। বৈঠকে কিম সম্পূর্ণভাবে পরমাণু নিরস্ত্রীকরণের প্রতিশ্রুতি দিয়ে ট্রাম্পের সঙ্গে চুক্তি করেন। কিন্তু তাঁদের এই চুক্তি ছিল খুবই সংক্ষিপ্ত, যাতে কিভাবে এই লক্ষ্য পূরণ হবে তা উল্লেখ ছিল না। সূত্র : এএফপি, রয়টার্স।

দেশে দেশে- এর আরো খবর