English

অনলাইন

আজকের পত্রিকা

ফিচার

সম্পাদকীয়

জমি কেলেঙ্কারি

রবার্ট ভদ্রের বিরুদ্ধে ফের অভিযোগ দায়ের

‘কংগ্রেসকে কালিমালিপ্ত করার ষড়যন্ত্র’

  • কালের কণ্ঠ ডেস্ক   
  • ৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০

গুরুগ্রামের জমি কেলেঙ্কারি নিয়ে ফের অস্বস্তিতে পড়লেন ভারতের কংগ্রেস দলের সভাপতি রাহুল গান্ধীর বোন প্রিয়াঙ্কা গান্ধীর স্বামী রবার্ট ভদ্র। জমি দুর্নীতির অভিযোগ এনে রবার্ট ও হরিয়ানার সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ভূপেন্দ্র সিং হুডার বিরুদ্ধে নতুনভাবে এফআইআর দায়ের করলেন সুরেন্দ্র শর্মা নামের এক ব্যক্তি। অভিযোগপত্রে রিয়েল এস্টেট সংস্থা ডিএলএফ এবং ওংকারেশ্বর প্রপার্টিজের নামও উল্লেখ করেছেন সুরেন্দ্র। সংবাদ সংস্থা পিটিআইকে এ কথা জানান হরিয়ানার মানেসরের ডেপুটি পুলিশ কমিশনার রাজেশ কুমার।

তবে প্রধান বিরোধী দল কংগ্রেসের নেত্রী সোনিয়া গান্ধীর মেয়ের জামাই রবার্ট ভদ্র বলেছেন, ক্ষমতাসীন বিজেপি কংগ্রেসকে কালিমালিপ্ত করার ষড়যন্ত্র করছে। বিজেপি রাজনৈতিক ফায়দা তুলতেই তাঁকে ফাঁসানোর চেষ্টা করছে।

রবার্ট ও ভূপেন্দ্র সিং হুডার বিরুদ্ধে অভিযোগে বলা হয়েছে, রবার্টের সংস্থা স্কাইলাইট হসপিটালিটি গুরুগ্রামের সেক্টর ৮৩, সিখোপুর, সিকন্দরপুর, খেড়কি দৌলা ও সিহিতে সাড়ে সাত কোটি টাকার বিনিময়ে জমি কিনেছে। পরে সেই জমিগুলোই ৫৫ কোটি টাকায় বিক্রি করে।

ভূপেন্দ্র সিং হুডা যখন হরিয়ানার মুখ্যমন্ত্রী ছিলেন সে সময়ই রবার্ট গুরুগ্রামের বিভিন্ন জায়গায় জমি কেনেন। আর পানির দরে সেই জমি পাইয়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছিল হুডার বিরুদ্ধে। এ নিয়ে সে সময় ব্যাপক হৈচৈ হয়। হুডা সরকার ও রবার্টের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ তুলে সরব হয় বিজেপি। ২০১৪ সালে হুডা সরকার পড়ে যাওয়ার পর বিজেপি ক্ষমতায় আসে। মুখ্যমন্ত্রী মনোহরলাল খাট্টারের সরকার ফের ওই দুর্নীতির বিরুদ্ধে তৎপর হয়। কিভাবে জমি কেনার লাইসেন্স পেল রবার্টের সংস্থা, তা নিয়ে তদন্ত করতে ২০১৫ সালে একটি কমিটি গঠন করে খাট্টার সরকার। সেই তদন্ত চলাকালেই দুর্নীতির ফের এই অভিযোগ বিজেপির হাতে অস্ত্র তুলে দিল বলে মনে করছে বিশেষজ্ঞমহল।

যাঁর বিরুদ্ধে জমি দুর্নীতির অভিযোগ, সেই রবার্ট ভদ্র কিন্তু প্রথম থেকেই দাবি করে এসেছেন, তাঁর বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন। উল্টো তিনি অভিযোগ করেন, রাজনৈতিক ফায়দা তুলতেই বিজেপি তাঁকে ফাঁসানোর চেষ্টা করছে। কংগ্রেসকে কালিমালিপ্ত করার ষড়যন্ত্র করছে। আগের মতো এবারও দুর্নীতির অভিযোগ সরাসরি খারিজ করে দিয়ে পাল্টা অভিযোগ করেন, এখন ভোটের মৌসুম চলছে। মূল্যবৃদ্ধির মতো আসল সমস্যা থেকে দেশবাসীর দৃষ্টি ঘোরাতেই এখন জমি দুর্নীতির হাতিয়ার করতে চাইছে বিজেপি। সূত্র : পিটিআই, আনন্দবাজার।

দেশে দেশে- এর আরো খবর