English

অনলাইন

আজকের পত্রিকা

ফিচার

সম্পাদকীয়

আপনার শিশু

পড়াশোনায় ভালো নয়?

সব শিশুই অসাধারণ, সব শিশুই বিশেষ গুণসম্পন্ন। শুধু সেটি প্রকাশের জন্য প্রয়োজন আপনার একটু সমঝদারি আর ভালোবাসা। বিকাশ হোক সব শিশুর সব গুণের। শিশুর সুপ্ত প্রতিভা খুঁজে বের করার উপায় জানাচ্ছেন সাইক ইনস্টিটিউট অব ম্যানেজমেন্ট অ্যান্ড টেকনোলজির বিভাগীয় প্রধান শিক্ষক স্মিতা দাস

  • ১০ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০

খুঁজে বের করুন অমূল্য রতন

সেই ব্যঙ্গাত্মক ছবিটির সঙ্গে আমরা অনেকেই পরিচিত, যেখানে বানর, সাপ, ভালুক, বাঘ প্রভৃতি প্রাণীর দক্ষতার পরীক্ষা হয়। কে কত দ্রুত গাছ বেয়ে উঠতে পারে, তার ওপর ভিত্তি করে। বলুন তো, কী বিচ্ছিরি মাপকাঠি! এই মাপকাঠি অনুযায়ী তো সবচেয়ে ক্ষমতাশালী প্রাণী বানর! কিন্তু বাস্তবিকই কি তাই? বাঘের ক্ষিপ্রতা, সাপের বিষাক্ততা, ভালুকের বাহুবলএগুলো কি কখনো বানরের চেয়ে কম? এবার আরেকটু ভেবে দেখুন, আপনার বাচ্চাকে কি শুধু স্কুলের মার্কশিটের নম্বরের ওপর ভিত্তি করে যাচাই করছেন? সেটি কি ঠিক হচ্ছে? না, মোটেই ঠিক হচ্ছে না। স্কুলের অঙ্ক-ইংরেজির গোলক ধাঁধায় বাচ্চাকে আটকে না রেখে তার সঠিক মেধা যাচাইয়ের চেষ্টা করুন ভিন্ন উপায়ে। দেখবেন, তার অজানা গুণগুলো বেরিয়ে আসবে, যার খবর আপনি বা আপনার আদরের সন্তানটি কেউ-ই আগে জানত না।

কী করবেন আর কী করবেন না

বাচ্চাকে খেলতে দিন নিজের মতো করে। হাসি-খেলায় তার প্রিয় বিষয়গুলো বের হয়ে আসবে আস্তে আস্তে। নিজেদের পছন্দমতো খেলা বা খেলনা বেছে না দিয়ে দেখুন সে কী চায়। এতে তার উৎসাহ কোন দিকে বোঝা যাবে। পাশাপাশি ছোটবেলা থেকেই নিজের পছন্দের বিষয়টি বেছে নেওয়ার এবং খোঁজার মনোভাব তৈরি হবে।

বাচ্চা যখনই নিজের মতো খেলে বা সময় কাটায়, তখন সে কী করতে ভালোবাসে সেটি খেয়াল করুন। হয়তো সে গান শুনতে, গুনগুন করে গলা মেলাতে কিংবা একা একাই হাত-পা নাড়িয়ে নাচতে চেষ্টা করে। বুঝতে হবে তার এই বিষয়টিতেই আগ্রহ আছে। যদি নিজে নিজে বই পড়ার চেষ্ট করে, শিখে ফেলে, তবে হয়তো সে একাডেমিক বিষয়ে মেধাবী বা ভাষাবিদ হবে। যদি নিজে নিজে কোনো কিছু গুনতে, মাপতে চেষ্টা করে, তবে সে গণিতবিদ হতে পারে। কিংবা সে ব্যালকনিতে ব্যাট-বল হাতে দৌড়াতে ভালোবাসে, তাহলে হতেও পারে সে আগামী দিনের সাকিব আল হাসান কিংবা সালমা খাতুন!

বাচ্চাকে নিজের পছন্দের বিষয় বেছে নেওয়ার সুযোগ করে দিন। আপনার পছন্দ তার ওপর চাপাবেন না। এতে সে সব সময় নিজের মতামত ও পছন্দকে প্রাধান্য দেবে। জীবনে কী চায় নিজেই পরিষ্কার বুঝতে পারবে। আগ্রহ নিয়ে সেই পথে পা বাড়াবে।

শিশুকে জিজ্ঞেস করতে পারেন, আজ তুমি কী ছবি আঁকতে চাও? নাকি ব্যাডমিন্টন খেলবে বিকেলবেলায়? সে অপশনগুলো থেকে কী বেছে নেয় খেয়াল করুন। শিশুর পছন্দের কাজগুলো করতে তাকে সব সময় উৎসাহ দিন। এ ছাড়া সে কোনো কাজে যদি মনোযোগ দেয়, সেটিকে বেশি বেশি উৎসাহ দিন।

শিশুর কাছ থেকে প্রত্যাশা কমান। সবাই একই সময়ে একই গতিতে শেখে না। তার ক্লাসমেট পারলে সে কেন পারবে নাএই নিয়ে জেরা করবেন না। নিজের গতিতে শিখতে দিন। এতে দেরিতে শিখলেও নিজের পছন্দের জিনিসটি ভালোভাবে শিখবে। প্রত্যেক মানুষই আলাদা, তাদের রুচি, আগ্রহের বিষয়ও আলাদা। শিশুর কোনো বিষয়ে বাবা কিংবা মায়ের মতো হয়েছেএসব চিন্তা বাদ দিন। বাবা ব্যারিস্টার বলে ছেলেও ব্যারিস্টার কিংবা মা ডাক্তার বলে মেয়েও ডাক্তার হবে এমন চিন্তাধারা বাদ দিন।

অনলাইনে বাচ্চাদের আইকিউ ও ইন্টারেস্ট পরিমাপের বহু ধরনের কুইজ পাওয়া যায়। এগুলো দিয়ে বাচ্চার পছন্দ-অপছন্দ যাচাই করতে পারেন, সঙ্গে বুদ্ধিমত্তাও। ইন্টারনেটের যুগে এই কাজটি এখন বেশ সহজ। বিভিন্ন ডুডলের অর্থ যাচাই করতেও বলতে পারেন। এ থেকে শিশুর চিন্তাপদ্ধতি বোঝা যায়।

স্কুলগামী শিশুদের ক্ষেত্রে কোন বিষয়টি বাচ্চার পড়তে ভালো লাগছে, ভালো ফল আসছে দেখুন। প্রয়োজনে শিক্ষকের সঙ্গে পছন্দ-অপছন্দ, সাবলীলতা-দুর্বলতা নিয়ে আলাপ করুন। একইভাবে আলাপ করুন ওর নাচ-গান-আঁকা সম্পর্কে শিক্ষকের সঙ্গেও। শিশুর বয়স কম হলে গল্পের ছলে আর বয়স পর্যাপ্ত হলে সরাসরি তার পছন্দ-অপছন্দের বিষয় নিয়ে কথা বলুন। এ ক্ষেত্রে সন্তানের পছন্দ প্রাধান্য দিয়ে তাকে একই সঙ্গে নাচ-গান-আবৃত্তি খেলাধুলা এমন বিভিন্ন কর্মকাণ্ডে জড়াতে দিন। সেখান থেকে পছন্দের বিষয় খুঁজে পাওয়া সহজ হবে। আপনার শিশুর গুণগুলো যাচাই ও বিশ্লেষণ করতে নিজেই এ বিষয়ক বই ও আর্টিক্যাল ঘেঁটে পড়াশোনা করতে পারেন।

শিশুর অন্যের সঙ্গে ভাবের আদান-প্রদান খেয়াল করুন। কী বিষয়ে কথা বলতে আগ্রহ পায় দেখুন। এ ছাড়া শিশু যদি বয়সের তুলনায় প্রাজ্ঞ ও আলাপি হয়, তবে সে মিশুক হবে এবং তার গোছানোর দক্ষতা ভালো হবে। শুধু পরীক্ষার ফলাফল নয়, ধৈর্য ধরে সেই সময়ের জন্য অপেক্ষা করুন যখন শিশুর বিশেষ প্রতিভা ফুটে উঠবে। তাড়াহুড়ো করবেন না। বুঝে নিন কখন তাকে অল্প শাসন করবেন আর কখন ছাড় দেবেন। সেই সুন্দর সময়টি আসবেই, যখন আপনার শিশু তার ভালোবাসার বিষয়টিতে মনোনিবেশ করবে।

A টু Z- এর আরো খবর